‘মনে হচ্ছে যেন আবারও পিতৃহারা হলাম’ বাদলের মৃ’ত্যুতে নওফেল

চট্টগ্রাম-৮ আসন থেকে নির্বাচিত জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সাংসদ ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মঈন উদ্দীন খান বাদল মা’রা গেছেন।

তাঁকে নিয়ে ফেসবুকে আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

নওফেল লেখেন, ‘মঈনুদ্দিন খান বাদল। বীর মুক্তিযোদ্ধা, জাতীয় নেতা, অনলবর্ষী বক্তা, সংসদ সদস্য, বীর চট্টলার গৌরব, আরও অনেক কিছুতেই তাকে সম্বোধন করা যায়।

না ফেরার দেশে তিনি আজ থেকে থাকবেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। মনে হচ্ছে যেন আবারও পিতৃহারা হলাম।’

নওফেলের বাবা চট্টগ্রামের প্রয়াত মেয়র ‘চট্টলবীর’ এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর সঙ্গে বাদলের বন্ধুত্বপূর্ন স’ম্পর্ক উল্লেখ করে নওফেল লেখেন, ‘দুবছর আগে হঠাৎ স্ট্রোক করে অ’সুস্থ হয়েছিলেন যখন, তখন তার বন্ধু মহিউদ্দিন চৌধুরীও গুরুতর ভাবে অ’সুস্থ, হা*সপা*তালে। খুব আফসোস করতেন বন্ধুকে দেখে যেতে পারেন নাই। অশ্রু সজল নয়নে স্ম’রণ করতেন। আজ থেকে আম’রা তাকে স্ম’রণ করবো।’

চট্টগ্রামের স্বার্থে বাদল আপোষহীন ছিলেন মন্তব্য করে তিনি লেখেন, ‘চট্টগ্রামের স্বার্থে, মুক্তিযু’দ্ধের স্বার্থে, দেশের সাধারণ মানুষের স্বার্থে জাতীয় সংসদ থেকে শুরু করে কোথায় ছিল না তার গর্জন? প্রথম তার সঙ্গে আমা’র পরিচয় শৈশবে। এরশাদের দোর্দ’ণ্ড শাসনের সময়। তৎকালীন পিজি হা*সপা*তাল, আজকের বঙ্গবন্ধু মে*ডিক্যা*লের রাজব’ন্দিদের কক্ষে। আমা’র বাবার প্রিজন সেলের সহব’ন্দি ছিলেন। এরশাদের সঙ্গে আপস করে মন্ত্রী হতে পারতেন, কিন্তু বেছে নিয়েছিলেন ব’ন্দি জীবন।’

নওফেল লেখেন, ‘আমাকে সমাজতন্ত্র শেখাতেন, দেখতেও ছিলেন স্ট্যালিনের মত, ইম্পোজিং ব্যক্তিত্ব। আমা’র বাবার সঙ্গে হাস্যরস আর গভীর রাজনৈতিক আলোচনায় মগ্ন থাকতেন। মন্ত্রমুগ্ধের মত তার কাছ থেকে শুনতাম। পরবর্তীতে যখনই দেখা হতো, প্রতিবার তার কাছ থেকে শিখেছি।’

‘রাজনৈতিক আলোচনা যে শুধুই পদবির আর ক্ষমতার রাজনীতি নয় এবং রাষ্ট্রনীতি, আদর্শ, উন্নয়ন, এসবই হচ্ছে রাজনীতির মূল আলোচনা, বারবার তার সান্নিধ্যে এসে তা অনুভব করেছি এবং অনুপ্রা’ণিত হয়েছি। বঙ্গবন্ধুর প্রশ্নে, তার সুযোগ্যা কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক প্রজ্ঞা এবং নেতৃত্বের প্রশ্নে, সেই শৈশব থেকে দেখেছি অবিচল দৃঢ়তার সঙ্গে তাকে বলতে।’

নওফেল লেখেন, ‘তিনি আর আমাদের মাঝে নেই। বাংলাদেশের রাজনীতি আরও একজন বিরল প্রজ্ঞাবান রাজনীতিবিদকে হারালো। এ এক অ’পূরনীয় ক্ষতি। জাতীয় সংসদ আর জাতীয় রাজনীতি, হয়তোবা এই সিংহের গর্জন আর শুনবে না। কিন্তু চট্টগ্রামের মানুষ, বাংলাদেশের মানুষ, আদর্শিক রাজনীতির এই সিংহ পুরুষকে আজীবন স্ম’রণ করবেন। বেঁচে থাকবেন আমাদের প্রিয় মাঈনুদ্দিন খান বাদল, আমাদের হৃদয়ের মনিকোঠায়।’