ঢাকাসহ ৪ বিভাগের বেশিরভাগ এলাকায় ভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস

আবহাওয়া অফিস শুক্রবার ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা এবং বরিশাল বিভাগের বেশিরভাগ জায়গায় ভারী থেকে অ’তি ভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস দিয়েছে।

সন্ধ্যায় জারি করা এক সতর্কবাণীতে বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ এর প্রভাবে সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাত হতে পারে।

‘বুলবুল’ বর্তমানে উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।

আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, শনিবার সন্ধ্যা নাগাদ এটি বাংলাদেশে আ’ঘাত হানতে পারে।

এদিকে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ মোকাবিলায় পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পাঠানো সর্বশেষ বুলেটিনে দেশের মংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৪ নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেতের পরিবর্তে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত এবং চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরে ৬ নম্বর দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদফত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। অন্যদিকে কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরকে ৪ নম্বর বিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড়টি শুক্রবার দুপুরে চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৯৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিম এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ৫৭৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিলো। এটি আরো ঘনিভূত হয়ে উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হচ্ছে।

প্রবল এই ঘূর্ণিঝড়ের কেন্দ্রের ৭৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১০০ কিলোমিটার, যা ১২০ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে সব মাছ ধ’রার নৌকা ও ট্রলারকে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।

পূর্বাভাস বলছে, শনিবার সন্ধ্যার পর সাতক্ষীরা-খুলনা অঞ্চলে আ’ঘাত করতে পারে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল। এতে কম-বেশি ঝড়ের কবলে পড়বে বাগেরহাট, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, পিরোজপুরসহ উপকূলের বিস্তীর্ণ এলাকা। আশ’ঙ্কা আছে ৫-৭ ফুট জলোচ্ছ্বাসেরও।

দু’র্যোগ ব্যবস্থাপনা প্রতিমন্ত্রী জানিয়েছেন, উপকূলের ১৩ জে’লায় আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বাতিল করা হয়েছে সরকারী কর্মক’র্তা-কর্মচারীদের ছুটি।