বন্ধুকে সঙ্গ দিতে বিমান ছেড়ে ট্রেনে উঠলেন সুধীর

ভারতে স্বাগতিকদের বি`পহ্মেচলছে বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি সিরিজ। এই সিরিজকে কেন্দ্র করে ব্যস্ত সময় কা'টাচ্ছেন দুই দলের সম'র্থকরাও।

গ্যালারিতে বসে যেসব সম'র্থক নিজ নিজ দেশের পক্ষে গলা ফাটিয়ে যান ক্লান্তিহীনভাবে, তাদেরও দলের মত ছুটতে হচ্ছে এক শহর থেকে অন্য শহরে।

ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যকার দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি অনুষ্ঠিত হয়েছিল রাজকোটে। তৃতীয় ম্যাচ নাগপুরে, যা হাজারেরও বেশি কিলোমিটার দূরে।

বাংলাদেশ ক্রিকে'টের পাঁড় ভক্ত শোয়েব আলী বুখারি দলকে সম'র্থন দিতে এখন ভারতে। রাজকোটের ম্যাচ শেষে নাগপুরে পাড়ি জমাতে তিনি যাতায়াতের জন্য বেছে নেন ট্রেন।

এদিকে ভারতের সম'র্থক সুধীর গৌতম নাগপুর যাওয়ার কথা বিমানে চড়ে। শোয়েবের মত তিনিও তার দেশে ক্রিকে'টের আইকনিক সম'র্থক। দুই দলের মাঠের ল'ড়াই বা দ্বৈরথ যতই থাকুক না কেন; বয়স, ধ'র্ম, জাতি বা দলের ভেদাভেদ ভুলে দীর্ঘদিন ধরেই বন্ধুত্বপূর্ণ স'ম্পর্ক শোয়েব ও সুধীরের।

আর তাই বন্ধু শোয়েবকে সঙ্গ দিতে সুধীর বিমানের ফ্লাইট ছেড়ে একই ট্রেনে যাত্রা করেন। রাজকোটে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ শেষে তৃতীয় ম্যাচের ভেন্যু নাগপুরে শোয়েব ও সুধীর যাচ্ছেন ট্রেনে করে।

রাজকোট থেকে নাগপুরে ট্রেনে যেতে প্রায় এক দিন সময় লাগে। রেলপথে দুই শহরের দূরত্ব ১২০১ কিলোমিটার। দিল্লীতে যাত্রাবিরতি নিয়ে বিমানে যেতেই লেগে যায় প্রায় ৫ ঘণ্টা। ট্রেনে গেলে সামলাতে হয় অনেক ঝক্কি-ঝামেলা। সব মিলিয়ে লেগে যায় সাড়ে ২১ ঘণ্টা!

সফররত বন্ধু শোয়েবের জন্য সুধীর আরাম'দায়ক ভ্রমণের পথ বাদ দিয়ে বেছে নিয়েছেন ট্রেনের দীর্ঘ ভ্রমণকেই!