বিদায় অনুষ্ঠান শেষে এসএসসি পরীক্ষার্থী ৩ স্কুলছাত্রীকে ‘গণধ'র্ষণ’

টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজে'লায় নবম শ্রেণির তিন ছাত্রীকে অ'পহরণের পর গণধ'র্ষণের অ'ভিযোগ উঠেছে। গতকাল রোববার উপজে'লার সাতকুয়া বন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আজ সোমবার কয়েকজনকে অ'জ্ঞাতনামা আ'সামি করে থানায় মা'মলা দায়ের করা হয়েছে। তিন স্কুলছাত্রীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হা*সপা*তালে পাঠিয়েছে পু'লিশ।

অ'ভিযুক্তদের শনাক্ত গ্রে'প্তার করতে পু'লিশ চেষ্টা করছে বলে জানিয়েছেন ঘাটাইলের থানার পরিদর্শক (ত'দন্ত) সাইফুল ইস'লাম।

মা'মলা ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গতকাল রোববার ঘাটাইলের একটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের দোয়া ও বিদায় অনুষ্ঠান ছিল।

ওই বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির চার ছাত্রী বিদ্যালয়ে আসার পর বেড়াতে বের হয়। সেখানে তাদের সঙ্গে হৃদয় ও শাহীন নামের দুই বন্ধু যোগ দেয়।

পরে তারা ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাযোগে সাতকুয়া বনে যায়। এ সময় পাঁচ-সাতজন দুস্কৃতিকারী তাদের ঘিরে ফেলে হৃদয়, শাহীন ও রিকশাচালক আশিককে মা'রধর করে তিনজনকে গণধ'র্ষণ করে।

এ সময় এক ছাত্রী ধষর্ণের হাত থেকে বেঁ`চে যায়। গতকাল দুপুর ২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত আ'ট'কে রেখে তিন ছাত্রীকে আবার গণধ'র্ষণ করে পালিয়ে যায় ধ'র্ষকরা।

এরপর ওই চার ছাত্রী তাদের একজনের নানার বাড়িতে আশ্রয় নেয়। মোবাইলে অ'ভিভাবকদের বিষয়টি জানায়। পরে অ'ভিভাবকরা থানায় জানালে পু'লিশ চার ছাত্রীকে উ'দ্ধার করে। এ ঘটনায় আজ এক স্কুলছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে অ'জ্ঞাত পাঁচ-সাতজনের বি'রুদ্ধে মা'মলা দায়ের করেন।

ঘাটাইল থানার পরিদর্শক (ত'দন্ত) সাইফুল ইস'লাম বলেন, ‘তিন ছাত্রী ধ'র্ষণের ঘটনায় থানায় শি'শু অ'পহরণ ও ধ'র্ষণ মা'মলা হয়েছে। আ'সামিদের গ্রে'প্তারের চেষ্টা চলছে। তিন স্কুলছাত্রীর ডাক্তারি পরীক্ষা হা*সপা*তালে পাঠানো হয়েছে।’

টাঙ্গাইল জেনারেল হা*সপা*তালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সদর উদ্দিন বলেন, ‘ওই তিন স্কুলছাত্রীর ডাক্তারি পরীক্ষা চলছে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর বিস্তারিত বলা যাবে।’