এবার একঝাঁক ভা'রতীয় অ'ভিনেতা-অ'ভিনেত্রীর বাড়িতে করো'নার থাবা

এবার করো'নার থাবা রাজ-শুভশ্রী, শ্রাবন্তী, পায়েল সরকার, অরিন্দম শীলদের আবাসনে। বাইপাসের ধারে একটি অ'ভিজাত বাড়িতে থাকেন রাজ-শুভশ্রী, পায়েল, শ্রাবন্তী, অরিন্দম শীল সহ বাংলা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির আরও কিছু ব্যক্তিত্ব।

সেই আবাসনেরই এক ব্যক্তি করো'না আ'ক্রান্ত বলে জানা যাচ্ছে। আ'ক্রান্ত ওই ব্যক্তিকে ইতিমধ্যেই হাসপাতা'লে ভর্তি করা হয়েছে।

জানা যাচ্ছে, বাইপাসের ধারে ওই আবাসনের যে টাওয়ারে রাজ-শুভশ্রী থাকেন। সেই টাওয়ারেরই এক বাসিন্দা করো'না আ'ক্রান্ত। এদিন রাজ চক্রবর্তীও নিজের ইনস্টাগ্রামে একটা পোস্ট করেছেন যেখানে তাঁকে মাস্ক পরে থাকতে দেখা যাচ্ছে। তিনি লিখেছেন, আজ থেকে সন্ধেয় হাঁটাও বন্ধ। এই মুহূর্তে রাজের স্ত্রী' অর্থাৎ অ'ভিনেত্রী শুভশ্রী গঙ্গোপাধ্যায় সন্তানসম্ভবা। তাই বিষয়টা তাঁদের কাছে যে একটু বেশিই চিন্তার হবে সেটাই স্বাভাবিক।

এবিষয়ে ওই আবাসনের আরেক বাসিন্দা পরিচালক অরিন্দম শীলের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব বলে তিনি জানান, ”হ্যাঁ, আমাদের আবাসনে একজন আ'ক্রান্ত। যে ব্যক্তি আ'ক্রান্ত তাঁকে ইতিমধ্যেই হাসপাতা'লে ভর্তি করা হয়েছে। ওনার পরিবারের সবাই কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। তবে আবাসন সিল করা হয়নি। আমা'র তরফ থেকে যতটা সতর্কতা অবলম্বন করা যায় সব মেনেই আম'রা চলছি। বিষয়টা সত্যিই চিন্তার।”

অ'ভিনেত্রী পায়েল সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আম'রা তো সবাই বাড়িতেই আছি। কেউ বের হচ্ছি না। আর এখানে সবকিছুই ভীষণ রেস্ট্রিকটেড। এখানে মাস্ক ছাড়া কেউ বের হতে পারেন না, সেটাই নিয়ম করা হয়েছে। এমনটি আম'রা যদি নিচেও কোনও জিনিস বা অনলাইনে অর্ডার করা জিনিসপত্র নিতে যাই, তখনও মাস্ক পরেই যাই। আবাসনে নিয়মিত স্যানিটাইড করাও হচ্ছে। সবকিছুই মেনে চলা হচ্ছে। তার পরেও যে কোনও কারণেই হোক একটা ঘটনা এমন ঘটে গিয়েছে। এটা দুর্ভাগ্যজনক। আশা করি উনি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুন। আমি নিজেও যথেষ্ট সচেতন ভাবেই রয়েছি। আমি বাড়ির জিনিসপত্র অনলাইন অর্ডার করছি। ওরা আমা'র টাওয়ারের নিচে রেখে যায়, তারপর আমি গিয়ে সেটা নিয়ে আসি। আমা'র মনে হয়, যে টাওয়ারের বাসিন্দা আ'ক্রান্ত ওখানে আরোও কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ”