Thursday , April 26 2018
Breaking News

ওবায়দুল কাদেরকে ধন্যবাদ জানালেন রিজভী

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ‘ওবায়দুল কাদেরকে ধন্যবাদ জানাই। কারণ, তিনি তাদের কুকর্মের কথা আগে জানিয়ে দিয়েছেন। দেশবাসী যেটা নানাভাবে জেনেছেন, এখন তা পুরোপুরি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের মুখ থেকে শুনেছেন।’

রবিবার (১৮ মার্চ ) বেলা ১২টায় বিএনপির নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন রুহুল কবির রিজভী।

রিজভী বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের বলেছেন উন্নয়ন দিয়েই দেশবাসীর মন জয় করেছে তারা। তাই আগামী নির্বাচন কেবল আনুষ্ঠানিকতা মাত্র। আগামী নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের কোনও শঙ্কা নেই। তিনি ঠিকই বলেছেন। কারণ, নির্বাচনের ফলাফল যদি আগে বাক্সবন্দি করে রাখা হয়, তাহলে তো তাদের কোনও শঙ্কা থাকার কথা নয়।’

আওয়ামী লীগ প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচন করতে চাচ্ছে না উল্লেখ করে রিজভী বলেন, ‘যেখানে প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচন হবে না, সেখানে তো একতরফা ফলাফল ঘোষণা করা হবে। তাই তিনি আনুষ্ঠানিকতার কথা বলেছেন। আমরা তো উন্নয়নের নানা দৃষ্টান্ত দেখছি। প্রতিদিন সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর মিছিল। এখন আকাশপথেও দুর্ঘটনা শুরু হয়েছে। উন্নয়নের নমুনা আমরা এখন ডানে-বামে দেখতে পাচ্ছি। উন্নয়নের নমুনা সকাল ৬টার ট্রেন সন্ধ্যায় ছাড়ে। এরকম নানান উন্নয়ন দেখতে পারছি।’

আওয়ামী লীগ জনগণকে ধোঁকা দেওয়ার বিদ্যা ভালো করেই জানে উল্লেখ করে রিজভী বলেন, ‘জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করাই আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক ইশতেহার। দলের নেতাদের কথায় মনে হচ্ছে তাদের মাস্টারপ্ল্যান চূড়ান্ত। কীভাবে আরেকটি ভোটারবিহীন নির্বাচন অনুষ্ঠিত করা যায় সেই চক্রান্তমূলক আয়োজনে তারা ব্যস্ত রয়েছেন। মাস্টারপ্ল্যানেরই অংশ হিসেবে খালেদা জিয়াকে সাজা দিয়ে কারাবন্দি করে রাখা হয়েছে।’

রিজভী আরও বলেন, ‘পিঠা ভাগের মতো সংসদীয় আসনের সিংহভাগ আওয়ামী লীগ নিজেদের কব্জায় রেখে বাকি স্বল্প সংখ্যক আসন অন্য দলগুলোকে ভাগ করে দেওয়ার কথা শোনা যাচ্ছে। এটাই নির্বাচনহীন একদলীয় শাসনের নমুনা। ওবায়দুল কাদেরের কথায় যে আনুষ্ঠানিকতা’র কথা বলা হয়েছে সেটা কী তারই আলামত? আসন ভাগাভাগির বিষয়টি অনেকটা পরিষ্কার হয়ে গেছে। যতই ষড়যন্ত্র করেন না কেন, যতই ভাগাভাগি করেন না কেন, বানরের পিঠা ভাগাভাগির নির্বাচন এদেশের জনগণ হতে দেবে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘নির্বাচন নিয়ে ছিনিমিনি খেললে কাঁটাতারের বেড়া নয়, চীনের প্রাচীরের ন্যায় প্রতিরোধ গড়ে তোলা হবে। বিএনপি একতরফা ভাগাভাগির নির্বাচনকে কেবল প্রত্যাখ্যান নয়, জনগণকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিরোধের ধাক্কায় গুঁড়িয়ে দেবে। বিএনপি খালেদা জিয়ার নেতৃত্ব নির্বাচনে অংশ নেবে। একই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীকে পদত্যাগ করতে হবে।