Thursday , April 26 2018

সাকিব প্রতিযোগী না, সহযোগী: ইউসুফ পাঠান

ইউসুফ পাঠান ও সাকিব আল হাসান দুজনের ভূমিকাটাই দলে এক রকম। একজন ডানহাতি আরেকজন বাঁ-হাতি হলেও দুজনই পালন করেন স্পিন অলরাউন্ডারের ভূমিকা। এবার সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের জার্সিতে মাঠে নামবেন দুজনই। মাঠে নামার আগে ইউসুফ বলছেন প্রতিদ্বন্দ্বী নয়, সাকিবকে তিনি দেখেন বন্ধু হিসেবেই।

কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে দুজনই লড়েছেন কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে। দলের হয়ে জিতেছেন দুই দুটি শিরোপা। আইপিএলের আসন্ন আসরে ইউসুফ পাঠানের সঙ্গে এবার বদলে গেছে সাকিব আল হাসানের দলও। কাকতালীয় দলেও দুজনই আইপিএলের ১১তম আসরে খেলবেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে।

আবারও এক দলের মাঠের লড়াইয়ে নামার আগে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির মুখোমুখি হয়েছিলেন ইউসুফ। এনডিটিভির প্রশ্নটা ছিল, সাকিবও তার দলে অলরাউন্ডার হিসেবেই খেলায় কোনো ধরনের প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে ওঠার সম্ভাবনা আছে কি না। সদ্যই ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে খেলে যাওয়া ডানহাতি এই অলরাউন্ডার সে আশঙ্কা অবশ্য তুড়িতেই উড়িয়ে দিয়ে সাকিবকে মানছেন বন্ধু হিসেবে, সেরা অলরাউন্ডার হিসেবে।

ইউসুফের ভাষ্যে, ‘সাকিব আমার খুব ভারো বন্ধু এবং সে সেরা একজন অলরাউন্ডার। আমরা কলকাতার হয়ে একসঙ্গে খেলেছি। এ কারণেই তাঁকে আমি প্রতিদ্বন্দ্বী থেকে বন্ধু ভাবতেই বেশি পছন্দ করি। আমরা দুজনেই দলের জন্য দারুণ কিছু করার চেষ্টা করব।’

কলকাতার হয়েই নয় শুধু সাকিবের সঙ্গে ইউসুফ এর আগেও একই দলে খেলেছিলেন বাংলাদেশের মাটিতেই। আবাহনী লিমিটেডের হয়ে ২০১৬ মৌসুমে ডিপিএল মাতিয়ে গেছেন ইউসুফ।

আগামী ৭ এপ্রিল পর্দা উঠবে আইপিএলের ১১ তম আসরের। তবে মাঠে নামতে সাকিব-ইউসুফদের অপেক্ষা করতে হবে আরো দুদিন। ৯ এপ্রিল ঘরের মাঠেই নিজেদের প্রথম লড়াইয়ে রাজস্থান রয়্যালসের মুখোমুখি হবে সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ।